রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ০৩:৪০ অপরাহ্ন

কৃষকের মুখে হাসি ফুটিয়েছে রোপা আমন ধান

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ চলতি মৌসুমে মাদারীপুরে রোপা আমন ধান চাষ করে কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এবার ধানের ফলনও ভালো হয়েছে। বাজারে ধানের দামও তুলনামূলক ভাল থাকায় খুশি কৃষকরা।

মাদারীপুর সদর উপজেলার ধুরাইল ইউনিয়নের কৃষক আনারদ্দিন মৃধা পাঁচ বিঘা জমিতে উচ্চফলনশীল রোপা আমনের চাষ করেছেন। এতে তার খরচ হয়েছে ৪০ হাজার টাকা। প্রতি বিঘায় ৩০ থেকে ৩৫ মণ ধান উৎপাদন হয়েছে।

কৃষক আনারদ্দিন মৃধা বলেন, গত পাঁচ বছরের মধ্যে এবারই এত ভাল ধান হয়েছে। তবে কয়েক দিন আগে ঝড়ের কারণে কিছুটা ক্ষতি হয়েছে। গত কয়েক বছর দাম কম থাকায় ধান চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছিলাম। তবে এ বছরে দাম ভাল আছে। তাই আমারা খুশি।

দক্ষিণ বিরাঙ্গল গ্রামের আরেক কৃষক আনন্দ বৈদ্য বলেন, এ বছর দুই বিঘা জমিতে চিনিগুড়া জাতের ধান চাষ করেছি। ফলন খুব ভালো হয়েছে। চিনিগুড়া ওজনে কিছুটা কম হলেও দামের দিক দিয়ে পুষিয়ে যায়।

মাদারীপুরের ডাসার উপজেলার ধান ব্যবসায়ী হৃদয় সরকার বলেন, আমন ধান এখন কৃষকেরা ঘরে তুলেছে। নতুন ধানের দাম হাটে প্রতিদিনই উঠানামা করে। বুধবার মোটা ধান প্রতি মণ ৯ শ ও চিকন ধান ৯শ ৩০ টাকা করে দর উঠেছে। তবে, নতুন ধান হাটে আগামী সপ্তাহ থেকে বেশি পাওয়া যাবে।

মদারীপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, মাদারীপুর জেলায় রোপা আমন আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৩ হাজার ৩১ হেক্টর জমি। অর্জিত হয়েছে ১৭ হাজার ৬ শ ৮০ হেক্টর জমি। যার মধ্যে মাদারীপুর সদরে ৩ হাজার ৯৬২ হেক্টর, কালকিনিতে ৭ হাজার ৭৩ হেক্টর,রাজৈরে ৩ হাজার ১৭৪ হেক্টর এবং শিবচরে উপজেলায় ৩ হাজার ৪৭১ হেক্টর জমিতে উন্নত জাতের উফশী রোপা আমন ধানের চাষ করা হয়েছে।

মাদারীপুররের কালকিনি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মিল্টন বিশ্বাস বলেন, চলতি বছর কৃষকেরা উন্নত জাতের উফশী রোপা আমন ধানের চাষ করে কাঙ্খিত ফলন ঘরে তুলতে পারছেন। ধান চাষে কৃষকদের সরকারি প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় বিভিন্ন ধরনের বীজ ও সার বিতরণ করা হয়েছিল। ধানের ফলনও ভালো হয়েছে।

মাদারীপুর জেলা কৃষি প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা এস.এম সালাউদ্দিন বলেন, আমরা সারা বছরই কৃষকদের বিভিন্ন ধরনের প্রক্ষিণ দিয়ে থাকি। এবার ধান উৎপাদন ভালো হয়েছে। ধান ভাল হওয়ায় চালের বাজারও সহজ্যলভ্য হবে।

মাদারীপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, মাঠ পর্যায়ে আমাদের কৃষি কর্মকর্তরা তদারকি করায় এবার আমন ধানে তেমন কোন রোগ বালাই হয়নি। তাই ফলন ভাল হয়েছে। আশা করি বাজারে যেহেতু ধানের দাম ৯শ টাকা থেকে ১ হাজার টাকা পর্যন্ত উঠামান করছে। তাতে মাদারীপুরের আমনচাষীরা লাভবানই হবেন।

এই নিউজটি আপনার ফেসবুকে শেয়ার করুন

© shaistaganjerbani.com | All rights reserved.