বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৫:৩২ অপরাহ্ন

খবরের শিরোনাম:
থাইল্যান্ডে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী ছয় দিনের সফরে থাইল্যান্ডের পথে প্রধানমন্ত্রী নবীগঞ্জে বর্তমান চেয়ারম্যানসহ ৫ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল শায়েস্তাগঞ্জে রাজাকারের নামে ২টি রাস্তা নামকরণ বাতিলের দাবীতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন আজমিরীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ শায়েস্তাগঞ্জে সার-বীজ বিতরণ করলেন এমপি আবু জাহির রাজনগর সরকারি কলেজ অধ্যক্ষের কক্ষ ভাঙচুর শায়েস্তাগঞ্জ ইন্টারনেট ব্যবসা নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক ভিডিওকলে মাধবপুরের রেহানাকে বাঁচানোর আকুতি, ‘আমি আর সহ্য করতে পারতেছি না’ মৌলভীবাজারে চা-শ্রমিকের ছেলের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ছাতকে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘর পাচ্ছেন আরও ১৮৫টি পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে ছাতকে প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় তৃতীয় ধাপে গৃহহীন ও ভূমিহীনদের জন্য ঘর নির্মাণ কার্যক্রম চলছে পুরোদমে।

দৃশ্যমান হতে শুরু করেছে নির্মাণাধীন ঘরগুলো। ফাঁকা জায়গায় মনোরম পরিবেশে নির্মানাধীন এইসব বাড়ি দেখে উন্মুক্ত পদ্ধতিতে নির্বাচিত ভূমিহীন পরিবারগুলোর মনের আনন্দ যেন ধরে না।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার শাহ আরেফিন নগর, জয়নগর, জোড়াপানির পয়েন্ট, জীবেরতল, মোল্লাপাড়া ও বাবনগাওঁ গ্রামে গৃহহীন ও ভূমিহীন মানুষদের জন্য বরাদ্দকৃত আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় নির্মাণাধীন ১৮৫টি ঘরের কাজ প্রায় শেষের দিকে। এ বাড়িগুলোতে একটি রান্না ঘর ও একটি টয়লেটসহ সামনে খোলা বারান্দা তৈরি করা হচ্ছে। সুপেয় পানি এবং বিদ্যুতেরও ব্যবস্থা করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ওইসব ঘরে বসবাস করার স্বপ্ন দেখছেন গৃহহীন পরিবারগুলো। অপেক্ষায় রয়েছেন কবে উঠবে সেই ঘরে।

নিজের ঘর দেখতে এসেছিলেন দিনমজুর আব্দুল আহাদ, তিনি জানান উপজেলা নির্বাহি অফিসারের মাধ্যমে উন্মুক্ত পদ্ধতিতে উপকারভোগী নির্বাচন করায় তিনিও একটি ঘর পেয়েছেন। ঘরের নির্মাণ কাজ চলছে শীঘ্রই ঘরে উঠবেন বলে তিনি আশাবাদী। তার স্ত্রী সন্তানেরা মুখিয়ে আছে নিজস্ব ঘরে উঠার জন্য। তিন সন্তানের জননী সাহেরা বেগম জানান, স্বামী-সন্তানদের নিয়ে অন্যের ভাড়া করা বাড়িতে অনেক বেকায়দায় দিন কাটছিলো৷ এখন স্বপ্ন দেখছেন নিজের বাড়িতে রাত কাটানোর। কিছু দিনের মধ্যে হয়তো সেই স্বপ্ন বাস্তবে রুপ নিবে৷

প্রকল্পের সভাপতি ও ছাতক উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুনুর রহমান জানান, বিপন্ন মানুষের আশ্রয় ও আবাসন নিশ্চিত করা, ভুমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমুল, অসহায় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর পুনর্বাসন করার লক্ষেই জাতির পিতার জন্মশতবর্ষে ঘরগুলো তৈরি করা হয়েছে। এখানে থাকা প্রতিটি পরিবারকে ঋণ প্রদান ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহে সক্ষম করে তোলা এবং আয়বর্ধক কার্যক্রম সৃষ্টির মাধ্যমে দারিদ্র্য দুরীকরণই আশ্রয়ণ প্রকল্পের মুল উদ্দেশ্য। এ প্রকল্প বাস্তবায়নের সময় উপকরণের সিমেন্ট, ইট-বালু, রড, কাঠ, টিন গুণগত মান শতভাগ বজায় রেখে কাজ চলছে। এছাড়া আশ্রয়ন প্রকল্পে থাকা প্রতিটি পরিবারের সব সময় খোজ খবর রাখা হচ্ছে। তাদের থাকার কোন অসুবিধা হলে তা তাৎক্ষনিক সমাধান করার চেষ্টা করা হচ্ছে।

এব্যাপারে সুনামগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক জানান, পৃথিবীর কোনো দেশেই এরকম একযোগে এতোগুলা মানুষের জন্য ঘর তৈরি করে দেয়ার নজির নেই। যা বঙ্গবন্ধু কন্যা করে দেখিয়েছেন। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিলো এদেশে কেউ ভূমিহীন থাকবে না। এ লক্ষ্য সামনে রেখে আশ্রয়ণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এই প্রকল্পের উপকারভোগীদের দায়িত্ব তাদের সন্তানদের সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়ে তোলা।

এই নিউজটি আপনার ফেসবুকে শেয়ার করুন

© shaistaganjerbani.com | All rights reserved.