বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:০১ অপরাহ্ন

খবরের শিরোনাম:
থাইল্যান্ডে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী ছয় দিনের সফরে থাইল্যান্ডের পথে প্রধানমন্ত্রী নবীগঞ্জে বর্তমান চেয়ারম্যানসহ ৫ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল শায়েস্তাগঞ্জে রাজাকারের নামে ২টি রাস্তা নামকরণ বাতিলের দাবীতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন আজমিরীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ শায়েস্তাগঞ্জে সার-বীজ বিতরণ করলেন এমপি আবু জাহির রাজনগর সরকারি কলেজ অধ্যক্ষের কক্ষ ভাঙচুর শায়েস্তাগঞ্জ ইন্টারনেট ব্যবসা নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক ভিডিওকলে মাধবপুরের রেহানাকে বাঁচানোর আকুতি, ‘আমি আর সহ্য করতে পারতেছি না’ মৌলভীবাজারে চা-শ্রমিকের ছেলের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে পাকিস্তান

 ডেস্ক রিপোর্ট  মঙ্গলবার নামিবিয়াকে ৪৫ রানে হারিয়ে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠে গেল পাকিস্তান। ২ নম্বর গ্রুপ থেকে তারাই প্রথম দল হিসেবে শেষ চারে তাদের স্থান নিশ্চিত করেছে। সেইসাথে এমন এক রেকর্ড তৈরি করল, যা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ইতিহাসে কোনো দলের নেই।

প্রথম দল হিসেবে পাঁচবার পুরুষদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ওঠল পাকিস্তান। এর মধ্যে তারা একবার চ্যাম্পিয়ন ও একবার রানার্সআপ হয়েছে। এখানেই শেষ নয়। এই ম্যাচের মাধ্যমে তারা আরো কয়েকটি রেকর্ড গড়েছে।

চলতি বছর আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে পঞ্চমবার শতরান পার্টনারশিপ করে ফেললেন বাবর আজম এবং মোহাম্মদ রিজওয়ান। আর কোনো জুটির এক বছরে দুটির বেশি শতরান পার্টনারশিপ নেই। তাছাড়া টি-টোয়েন্টিতে কোনও ক্যালেন্ডার বর্ষে এই প্রথমবার কোনো জুটি ১,০০০ রান করল

কোনো বছর আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে সর্বাধিক ৫০ রানের বেশি পার্টনারশিপের নিরিখে রেকর্ড গড়লেন বাবর এবং রিজওয়ান। তারা চলতি বছর সাতটি অর্ধশতরান পার্টনারশিপ করে ফেলেছেন। তারপর আছে মার্টিন গাপ্টিল এবং কেন উইলিয়ামসনের জুটি। ২০১৬ সালে তাদের জুটিতে ছ’টি অর্ধশতরান হয়েছিল।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার আবু ধাবির জায়েদ ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নামে পাকিস্তান। ব্যাট হাতে পাকিস্তানকে দুর্দান্ত সূচনা এনে দেন দলের দুই ওপেনার মোহাম্মদ রিজওয়ান ও অধিনায়ক বাবর আজম। দলীয় ১১৩ রানে বাবরের বিদায়ে প্রথম উইকেট হারায় পাকিস্তান। টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের ২৩তম হাফ-সেঞ্চুরি তুলে নামিবিয়ার দক্ষিণ আফ্রিকান পেসার ডেভিড ওয়াইজের বলে আউট হওয়ার আগে ৪৯ বলে ৭টি চারে ৭০ রান করেন বাবর।

তিন নম্বরে নেমে ৫ রানে ফিরেন ফখর জামান। তবে তৃতীয় উইকেটে ২৬ বলে অবিচ্ছিন্ন ৬৭ রান যোগ করে পাকিস্তানকে বড় সংগ্রহ এনে দেন রিজওয়ান ও মোহাম্মদ হাফিজ। শেষ পর্যন্ত ২০ ওভারে ২ উইকেটে এবারের আসরের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৮৯ রান পায় পাকিস্তান।

টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে ১০ম হাফ-সেঞ্চুরির ইনিংসে ৫০ বল খেলে ৮টি চার ও ৪টি ছক্কায় অপরাজিত ৭৯ রান করেন রিজওয়ান। ১৬ বলে অপরাজিত ৩২ রান করেন হাফিজ। তার ইনিংসে ৫টি চার ছিলো। নামিবিয়ার ওয়াইজ ও জান ফ্রাইলিঙ্ক ১টি করে উইকেট নেন। জবাবে পাকিস্তানী বোলারদের সামনে সুবিধা করতে পারেনি নামিবিয়ার ব্যাটাররা। উইকেট ধরে খেলতে গিয়ে আস্কিং রেটের সাথে পাল্লা দিতে পারেননি তারা। তারপরও ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৪৪ রান তুলতে সক্ষম হয় নামিবিয়া।

দলের পক্ষে ওয়াইজ সর্বোচ্চ অপরাজিত ৪৩এবং ক্রেইগ উইলিয়ামস দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন। পাকিস্তানের হাসান-ইমাদ-রউফ ও শাদাব ১টি করে উইকেট নেন। ম্যাচ সেরা হন পাকিস্তানের রিজওয়ান। গ্রুপ পর্বে নিজেদের পঞ্চম ও শেষ ম্যাচে আগামী ৭ নভেম্বর স্কটল্যান্ডের মুখোমুখি হবে পাকিস্তান। আর নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে আগামী ৫ নভেম্বর নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে লড়বে নামিবিয়া।

এই নিউজটি আপনার ফেসবুকে শেয়ার করুন

© shaistaganjerbani.com | All rights reserved.