বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:০২ অপরাহ্ন

খবরের শিরোনাম:
থাইল্যান্ডে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী ছয় দিনের সফরে থাইল্যান্ডের পথে প্রধানমন্ত্রী নবীগঞ্জে বর্তমান চেয়ারম্যানসহ ৫ প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল শায়েস্তাগঞ্জে রাজাকারের নামে ২টি রাস্তা নামকরণ বাতিলের দাবীতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন আজমিরীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধি প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ শায়েস্তাগঞ্জে সার-বীজ বিতরণ করলেন এমপি আবু জাহির রাজনগর সরকারি কলেজ অধ্যক্ষের কক্ষ ভাঙচুর শায়েস্তাগঞ্জ ইন্টারনেট ব্যবসা নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষ, আহত অর্ধশতাধিক ভিডিওকলে মাধবপুরের রেহানাকে বাঁচানোর আকুতি, ‘আমি আর সহ্য করতে পারতেছি না’ মৌলভীবাজারে চা-শ্রমিকের ছেলের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

নবীগঞ্জে ‘দুর্ঘটনার সেতু’ নিয়ে বিপাকে মানুষ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার নবীগঞ্জ-ইনাতগঞ্জ আঞ্চলিক সড়কের আগনা গ্রামের মধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ সেতুতে প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা। গত রোববার (২০ জানুয়ারি) ওই সেতুতে গাড়ি উল্টে পড়ে গিয়ে গাড়িতে থাকা ৫ জন যাত্রী গুরুতর আহত হন। গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায়ও ঘটেছে আরেকটি দুর্ঘটনা।

জানা যায়, গত রোববার রাত ১১টায় একটি নোহা গাড়ি নবীগঞ্জ থেকে সিলেটের বিশ্বনাথে যাওয়ার জন্য রওয়ানা হলে আগনা সেতুতে উঠার সময় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খালে পড়ে যায়। গাড়িতে থাকা ৫ জন যাত্রীকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে নবীগঞ্জ হাসপাতালে পাঠান। এরপর গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও ব্যাটারিচালিত টমটম একই স্থানে দুর্ঘটনার শিকার হয়। এই সেতুতে এমন দুর্ঘটনা নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, এই ঝুঁকিপূর্ণ সেতুতে প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। অনেক জায়গায় দেখা যায় অপ্রয়োজনীয় স্পিডব্রেকার। অপ্রয়োজনে করা হয় নতুন সেতু ও সেতুর সংস্কার। অথচ যেখানে প্রতিনিয়ত দুর্ঘটনার শিকার হয় সাধারণ মানুষ, সেখানে নেই কোনো স্পিডব্রেকার বা সর্তকতামূলক সাইনবোর্ড। যার কারণে দূর থেকে আসা যানবাহন দুর্ঘটনার শিকার হয়। কেন এত দুর্ঘটনার পরও এখনও সেতুটি সংস্কার কিংবা নতুন করে সেতু নির্মাণ হচ্ছে না তা জানা নেই কারও।

এলাকাবাসী অতীতে অনেক জনপ্রতিনিধির নিকট বার বার আবেদন করলেও এর কোনো সমাধান হচ্ছে না। সেতুটি পূনঃনির্মাণের কোনো উদ্যোগ কেউ নিচ্ছে না। তাই দিন দিন দুর্ঘটনা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এই সেতুতে দুর্ঘটনায় পতিত হয়ে অনেকে পঙ্গুত্ব বরণ করছেন।

সেতু সংলগ্ন এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা ডা. লুৎফুর রহমান শিকদার জানান, প্রায় প্রতিদিনই দিনে ও রাতে চিৎকার শুনে এখানে এলে দেখা যায় কেউ না কেউ দুর্ঘটনার শিকার হয়েছে। কোনো জনপ্রতিনিধি এ ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা নেননি। আসলে এ ব্যাপারটির সুরাহা হওয়ার দরকার। আমরা এলাকাবাসী এর প্রতিকার চাই, যাতে আর কেউ দুর্ঘটনার সম্মুখীন না হয়।

এই নিউজটি আপনার ফেসবুকে শেয়ার করুন

© shaistaganjerbani.com | All rights reserved.