সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২:২৬ পূর্বাহ্ন

খবরের শিরোনাম:

বাহুবলে ৬ হাজার বিঘা বোরো জমির চাষাবাদ অনিশ্চিত

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বাহুবলে পানির অভাবে প্রায় ৬ হাজার বিঘা জমিতে বোরো চাষাবাদে অনিশ্চিয়তা দেখা দিয়েছে। এতে হাজারো কৃষক চরম হতাশায় ভোগছেন। এদিকে, করাঙ্গী নদীর অলুয়া বাঁধটি বহাল রাখার জন্য জেলা প্রশাসক, বিএডিসি, উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা চেয়ারম্যানসহ বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন-নিবেদন জানিয়েছেন কৃষকরা।
জানা যায়, উপজেলার ভাটি এলাকায় অবস্থিত গুঙ্গিয়াজুরী হাওর। ওই হাওরে অলুয়া, নোয়াগাঁও, সেনারকান্দি, শংকরপুর, খালাকারৈল, কাশিপুর, ফতেহপুর, হোসেনপুর, লালপুর, নিদনপুর, মানিকপুর, গোকুলপুর, জারিয়া, জগতপুর, সদর, আলাপুর, বালিয়াকান্দি ও মীরজুমলা গ্রামসহ পার্শবর্তী বিভিন্ন গ্রামের প্রায় ৬ হাজার বিঘা বোরো জমি রয়েছে। করাঙ্গী নদীর পানিতে ওইসব জমি চাষাবাদ করা হয়ে থাকে। বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় শতবৎসর যাবত হাজারো কৃষক করাঙ্গী নদীর পানিতেই বোরো জমি চাষাবাদ করছেন। এমতাবস্থায়, করাঙ্গী নদীতে ২০২০ সনে সরকারের পক্ষে স্থাপিত রাবার ডাম্পে পানি ব্যবহারে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। প্রতিবন্ধকতার কারণে গত বছর বোরো ফসল চাষাবাদ করতে না পারায় প্রায় ৬ হাজার বিঘা জমি পতিত থেকে যায়। জমি চাষাবাদের সুবিধার্থে নদীতে আলাদাভাবে বাঁধ নির্মাণের দাবী স্থানীয়দের থাকলেও তা আমলে নেয়নি সংশ্লিষ্টরা। যে কারণে, এবারো জমি চাষাবাদ অনিশ্চয়তার হাত থেকে রক্ষা পেতে এলাকাবাসী করাঙ্গী নদীর অলুয়া বাঁধটি বহালের দাবী জানান।
স্থানীয় ভুক্তভোগী কৃষক কমর উদ্দিন, গেদু মিয়া ও অলি মিয়াসহ অনেক কৃষকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, পানির অভাবে গত বছর বোরো ফসল ফলানো সম্ভব হয়নি। অভাব-অনটনে জীবনযাপন করতে হচ্ছে। তারা আরও জানান, অলুয়া নামকস্থানে একটি বাঁধ রয়েছে। এ বাঁধের পানিই এলাকার মানুষজন জমি চাষাবাদের একমাত্র ভরসা। বাঁধটি বহাল রাখা হলে চলতি মৌসুমে বোরো চাষাবাদ সম্ভব, নতুবা হাজারো কৃষকদের পরিবারে চরম দুর্দিন নেমে আসতে পারে।

এই নিউজটি আপনার ফেসবুকে শেয়ার করুন

© shaistaganjerbani.com | All rights reserved.