রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:৫০ পূর্বাহ্ন

হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালে বিশুদ্ধ পানির সংকট ॥ চরম ভোগান্তি

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হবিগঞ্জ আধুনিক সদর হাসপাতালের ৩টি নলকূপই বিকল হয়ে পড়ে আছে। এতে বিশুদ্ধ খাবার পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। অনেক দরিদ্র রোগীকে বাথরুমের ট্যাপ থেকে নোংরা পানি পান করতেও দেখা গেছে। ফলে এখানে ভর্তি থাকা কয়েক শতাধিক রোগী ও তাদের সঙ্গে থাকা স্বজনরা মারাতœক দুর্ভোগে পড়েছেন। হাসপাতালের পানির নলকূপ দীর্ঘদিন ধরে বিকল হয়ে পড়ে থাকায় রোগীরা হাসপাতালের বাইরে গিয়ে অনেক দূর থেকে বিশুদ্ধ পানি সংগ্রহ করতে হয়। কোনো কোনো সময় বেশী দূর না যেতে পেরে বাধ্য হয়ে হাসপাতালের সামন থেকে বেশী টাকা দিয়ে পানি কিনতে হচ্ছে। তবে হাসপাতালের রাত্রের চিত্র ভিন্ন, অনেক দরিদ্র রোগীকে দেখা গেছে রাতের বেলা টাকার অভাবে বাথরুমের ট্যাপ থেকে নোংরা পানি পান করতে। হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, সদর হাসপাতালের পাঁচটি ওয়ার্ডে কয়েক শতাধিক রোগী ভর্তি রয়েছে। এর বাইরে প্রতিদিন বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসা প্রায় ২০০/৩০০ রোগী আউটডোরে চিকিৎসা নেয়। এসব রোগীর জন্য হাসপাতাল আঙিনায় ৪টি নলকূপ থাকলেও দীর্ঘদিন ধরে সেগুলো বিকল হয়ে পড়ে আছে। সরজমিনে দেখা যায়, জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সামনে একটি নলকূপ থাকলেও সেটাও নিরাপত্তা ও কতৃপক্ষের অবহেলার কারণে গত ২ দিন আগে চুরি হয়ে যায়। এতে বিরাট বিরম্ভনায় পড়তে হচ্ছে সাধারণ রোগীদের। চিকিৎসা নিতে আসা সদর উপজেলার নিজামপুর গ্রামের সফির আলী বলেন, ‘বেশ কিছুদিন ধরে আমি আমার স্ত্রী নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি। হাসপাতালে খাবার পানির কোনো ব্যবস্থা নেই। বাইরের হোটেল কিংবা খাবার দোকান থেকে পানি আনতে হয়। তিনি বলেন, গতকাল শনিবার রাত দেড়টার দিকে পানির দরকার হলে বাইরে গিয়ে পানি খেয়ে আসেন এবং বোতলে করে নিয়ে আসেন। চিকিৎসা নিতে আসা করিম মিয়া বলেন, এখন করোনার সময়, যেখানে বেশী পরিমাণে পানি পান করার কথা, সেখানে পানির হাসপাতালের টিউবওয়েল গুলো বিকল হয়ে পড়ে আছে। হাসপতালে ভর্তি হওয়া সব রোগীই বিশুদ্ধ পানির সংকটে রয়েছে। ফলে অনেকেই হাসপাতালের বাথরুমের ট্যাপ থেকেও নোংরা পানি পান করতে বাধ্য হচ্ছেন। এ ব্যাপারে হাসপতালের তত্ব¦াবধায়ক ডাঃ আমিনুল হক সরকার এর সাথ যোগাযোগ করলে তিনি জানান, পানির চাহিদা মেটাতে গণপূতকে একাধিকবার বলা হয়েছে। নলকূপ গুলো মেরামতের প্রয়োজনয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য গণপূর্ত অধিদপ্তরকে বলা হলেও তারা উদ্যোগ নিচ্ছে না।

এই নিউজটি আপনার ফেসবুকে শেয়ার করুন

© shaistaganjerbani.com | All rights reserved.